a
Sorry, no posts matched your criteria.
Image Alt
 • গ্রুমিং  • যে পাঁচ কারণে সাদা স্নিকার এখনো ট্রেন্ডি

যে পাঁচ কারণে সাদা স্নিকার এখনো ট্রেন্ডি

১৮৭০ সালের দিকে ইংল্যান্ডে হোয়াইট স্নিকারের চল প্রথম শুরু হয়। হোয়াইট লো টপ টেনিস শুর মাধ্যমে এটার বিপ্লব শুরু হয়। ১৯১৭ সালে প্রথম ক্যানভাস স্নিকার গণমানুষের জন্য বাজারে আসা শুরু করে। আর ১৯৭০ এর শেষ দিকে লেদার লো টপ ছেলে ও মেয়েদের জন্য কালচারাল স্টাইলের প্রতীক হয়। ২০১৪ সালের শেষ দিকে সাদা স্নিকার রানওয়ে আর স্ট্রিট স্টাইল ফোকসের মধ্যে আবারও জনপ্রিয় হয়। ২০১৯ সালেও এই ট্রেন্ডটা বজায় আছে এই পাঁচ কারণে

বড় কোম্পানিরা এটি ব্যবহার করছে

বালেনসিয়াগা, লুইস ভুইটন, অ্যাডিডাস, রিবক, নাইকি, ভ্যান্স এর মতো বড় ব্র্যান্ডের সাদা স্নিকার আছে। ফ্যাশন জায়ান্টরা যখন সবাই এমন কিছু বের করে তখন সেটা এড়িয়ে যাওয়াও কঠিন। এইসব ব্র্যান্ডের সাদা স্নিকারের প্রোডাকশন দেখলেই বোঝা যায় কেন এটা এখনো ট্রেন্ডি।

সেলিব্রিটিদের পায়েও সাদা স্নিকার

সাদা স্নিকার ইনফ্লুয়েন্সারদের মধ্যেও বেশ জনপ্রিয়। জন লেনন, টেইলর সুইফট, জাস্টিন টিম্বারলেক, আনুশকা শর্মা, কাঙ্গনা রানাউতসহ আরও অনেককেই স্ক্রিনে সাদা স্নিকার পরতে দেখা গেছে।

সাদা একটি আইকনিক রং
সাদা এমন একটা রঙ যেটা যে কোনো রঙ বা স্টাইলের সাথে মানিয়ে যায়। এটা তাই সব যুগেই মানায়। তার ওপর, এর এমন একটা আইকনিক টাচ আছে, ইতিহাসে অনেক বিখ্যাত ব্যক্তিদের সাদা রঙের প্রতি বিশেষ দুর্বলতা দেখা গেছে।

যে কোনো কিছুর সাথেই মানিয়ে যায়

সাদা স্নিকারের একটা বড় সুবিধা হচ্ছে, এটি যে কোনো কিছুর সঙ্গেই মানিয়ে যায়। বিখ্যাত স্টাইলিস্ট হারিয়েট বাইজক বলেছেন, ‘স্মার্ট দেখানোর ভালো একটা উপায় হচ্ছে স্যুটের সাথে স্নিকার পরা।’ একই সঙ্গে ক্যাজুয়াল লুকের জন্যও হোয়াইট স্নিকার বেশ ভালো।

সাদা স্নিকারের যে ঐতিহ্যের কথা বলা হয়েছে সেটা অবশ্য নির্দিষ্ট করে বলা কঠিন। এটা অবশ্য বলা যায়, সাদা স্নিকারের চল সবসময় ছিল। ১৯৭০ থেকে যেহেতু এটা চলে আসছে, এখনও চলছে, এটা বলা যায় সামনেও এটা চালু থাকবে।

POST A COMMENT